সরকার পতন না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ ছাড়বো না: আমান

খবর টি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান বলেছেন, যতক্ষণ ত্বত্তাবধায়ক সরকার না দিবে ততক্ষণ রাজপথে যদি আমাদের মৃত্যুও হয় আমরা রাজপথ ছেড়ে যাবো না। তিনি বলেন, মাননীয় মহাসচিব আপনি আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে ম্যাসেজ পৌঁছে দিবেন, উনি কর্মসূচি দিবেন আমরা আপনার নেতৃত্বে ঢাকার রাজপথে থাকবো। যতক্ষণ হাসিনা পদত্যাগ না করবে, যতক্ষণ ত্বত্তাবধায়ক সরকার না দিবে ততক্ষণ রাজপথে যদি আমাদের মৃত্যুও হয় আমরা রাজপথ ছেড়ে যাবো না।

শনিবার (২ অক্টোবর) রাজধানীর রমনাস্থ ইঞ্জিনিয়ার ইনিস্টিউট মিলনায়তনে বিএনপি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। সাংবিধানিকভাবে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে ২০০১ সালের ১ অক্টোবর বাংলাদেশে সর্বশেষ নিরপেক্ষ ও জনগণের অংশগ্রহণ মূলক গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই দিবসটিতে নির্বাচনকালীন সময়ে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আবশ্যকতাকে তুলে ধরার জন্য এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বিএনপি।

আমানুল্লাহ আমান বলেন, তারেক রহমানের একটি স্লোগান আছে, ‘যদি তুমি ভয় পাও তবে তুমি শেষ, যদি তুমি রুখে দাঁড়াও তবেই বাংলাদেশ’। সেই বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার জন্য, শহীদ জিয়া, বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার জন্য আমরা আরেকবার যুদ্ধ করে বিজয়ী হবোই ইনশাআল্লাহ। ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, চার বার ত্বত্তাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হয়েছে। চার বারই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ আমরা এমপি হয়েছি। আর দলীয় সরকারের অধীনে যে নির্বাচন হয়েছে সে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ছাড়া আর কোনো দলের যেভাবে নির্বাচিত হওয়ার কথা সেভাবে নির্বাচিত হয়নি। বিএনপি পেয়েছে ছয় আসন আর জাতীয় পার্টি পেয়েছে ৩০ আসন। এরশাদ নির্বাচন না করেই এমপি হয়ে গেছেন।

তিনি বলেন, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর ভোট হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু ২৯ ডিসেম্বর আগের রাতেই ভোট হয়ে গেছে। নির্বাচনের দিন কোনো এজেন্ট থাকতে পারেনি, সব এজেন্ট বের করে দিয়েছে। আমান উল্লাহ আমান বলেন, এই সরকার আবার একটি নির্বাচন করতে চায়। অনেক আশা তারা আবার ক্ষমতায় আসবেন। আমি বলবো বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে রফিক, জব্বাররা জীবন দিয়ে মায়ের ভাষা প্রতিষ্ঠা করেছিল। বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলনে অজিউল্লাহ বাবু ভাইয়ের জীবনের বিনিময়ে শিক্ষার অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান শহীদ আসাদের রক্তে সফল হয়েছিলো। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে লাখ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে সেদিন আমরা স্বাধীনতা পেয়েছিলাম। নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে শহীদ নুর হোসেনর রক্তের বিনিময়ে আমরা পেয়েছিলাম গণতন্ত্র। সেই গণতন্ত্রের মাতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আজকে কারাগারে। তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে না।

তিনি বলেন, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে যে ব্যক্তি আমাদেরকে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার বার্তা নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জসিমউদ্দিন হলসহ মধুর কেন্টিনে পৌঁছে দিয়েছিলেন, স্বৈারাচারে লাঠির আঘাতে যে নেতার পিঠে কালো দাগ পরেছিল, সেই নেতা তারেক রহমান এখন নির্বাসিত। আজকে এই ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটিয়ে দেশনেত্রীকে মুক্ত করার জন্য, দেশনায়ক তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য আমাদের শপথ নিতে হবে। এজন্য আমাদের নামের পাশে যদি শহীদ লিখা হয় আমরা প্রস্তত আছি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ভাইস চেয়ারম্যান ডাঃ এজেডএম জাহিদ হোসেন, আবদুল আউয়াল মিন্টু, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, দক্ষিণের আহ্বায়ক আব্দুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. মোরতাজুল করিম বাদরু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, ছাত্র দলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানী দিলারা চৌধুরী প্রমুখ।

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১

প্রধান পৃষ্ঠপোষক: আলহাজ্ব ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ্ (এমপি),মাননীয় সংদ সদস্য ঢাকা ১৬,

প্রধান উপদেষ্ঠা: সাইদুর রহমান রিমন, সিনিয়র ক্রাইম রিপোর্টার, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন

চেয়ারম্যান ও প্রকাশক: মোঃ মাসুদ রানা (জিয়া), সহকারি সম্পাদক, দৈনিক অগ্নিশিখা,

সম্পাদক: শাহাজাদা শামস ইবনে শফিক

সহ-সম্পাদকমোঃশরিফুল ইসলাম (রবিন)

সম্পাদকীয় কার্যালয় : ১২০/এ মতিঝিল বা/এ, ৪থ তলা, সুইট-৪০২, ঢাকা- ১০০০

বার্তা কক্ষ : 01642078164

বিজ্ঞাপনের জন্য : 01686571337

Gmail:banglarraz24@gmail.com

 

x

Contact Us